বুধ. এপ্রিল 24th, 2024

কুড়িগ্রমের ৬পোস্ট অফিস কর্মকর্তা-কর্মচারীর ৯ বছরের কারাদন্ড

‘স্টাফ রিপোর্টার রংপুর:’
কুড়িগ্রাম প্রধান ডাকঘরের সাবেক সহকারী পোস্ট মাস্টার আবুল কালাম আজাদসহ ৬ কর্মকর্তা কর্মচারীকে ৯ বছরের করে কারাদন্ডাদেশ দিয়েছে রংপুরের স্পেশাল জজ আদালত।লেজার ভূয়া টাকার অংক বসিয়ে বাতিল কৃত সঞ্চয় পত্র ছক ভাঙগিয়ে সিডিউল গায়েব করে প্রায় ১২ লাখ টাকা আত্মসাতের দায়ে কারাদন্ডাদেশ দিয়েছে আদালত।
সোমবার (১৫ জানুয়ারী) দুপুরে রংপুরের স্পেশাল জজ আদালতের বিচারক মোঃ হায়দার আলী এই আদেশ দেন। একই সাথে তাদেরকে ৬০ দিনের মধ্যে আত্মসাতকৃত ১২ লাখ ২০ হাজার ৪৯২ টাকা রাষ্ট্রীয় কোষাগারে ফেরত দেয়ার আদেশ দেন বিচারক।
রাষ্ট্রপক্ষের কৌশলী একে হারুণ অর রশিদ জানান, ২০০৫ সালের ৭ এপ্রিল কুড়িগ্রাম পোস্ট অফিসের পোস্ট অফিস পরিদর্শক একেএম শাহাদত হোসেন কুড়িগ্রাম সদর থানায় কুড়িগ্রাম প্রধান ডাক ঘরের সাবেক সাবেক সহকারী পোস্ট মাস্টার আবুল কালাম আজাদ, সাবেক লেজার অপারেটর হাবিবুর রহমান, অশোক কুমার ও আব্দুল মালেক, কম্পিউটার অপারেটর মতিউল ইসলাম, কাউন্টার অপারেটর মওদুদ হাসানের নামে সরকারি অর্থ আত্মসাতের মামলা করেন।
মামলায় বলা হয়, কুড়িগ্রাম ডাকঘরে কর্মরত অবস্থায় তারা পরস্পরে যোগসাজসে করে মেয়াদী হিসাব নং ৫৮৯ এ ভুয়া টাকার অংকে লিখে বাতিলকৃত সঞ্চয়পত্র ছক ০৫৬৬১২ ভাংগিয়ে দৈনিক সিডিউল গায়েব করে ৪ লাখ ২১ হাজার ৪৭০ টাকা এবং কুড়িগ্রাম প্রধান ডাকঘরে কর্মরত অবস্থায় একই উপায়ে মেয়াদী হিসাব নং ৭০৪ নম্বর লেজার থেকে ১ লাখ ৯৪ হাজার ১০৬ টাকাসহ ১২ লাখ ২০ হাজার ৪৯২ টাকা উত্তোলন করে আত্মসাত করেন। পরবর্তীতে দুদক মামলাটি তদন্ত করে আদালতে চার্জশিট দাখিল করে।ওই মামলায় দুটি ধারায় প্রত্যেক আসামিকে ৯ বছরের করে কারাদন্ডাদেশ সহ রাষ্ট্রীয় অর্থ কোষাগারে ফেরতের আদেশ দেন। আদেশের সময় মওদুদ হাসান ও অশোক কুমার নাথ পলাতক ছিলেন।
পিপি জানান, এই রায়ে ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। কেউ দুর্নীতি করার সাহস পাবে না।
আসামীপক্ষের আইনজবি আব্দুর রহমান জানান,এই রায়ে ন্যয় বিচার প্রতিষ্ঠিত হয়নি। আমরা আপিল করবো।