রবি. সেপ্টে. 25th, 2022

নীলফামারীতে ১৩ বছর পর আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন।

সুভাষ বিশ্বাষঃ ১৩ বছর পর নীলফামারী জেলা আওয়ামীলীগের ত্রি-বার্ষিক
সম্মেলন ৫ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। প্রধান
অতিথি থাকবেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক
পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। প্রধান বক্তা হিসাবে উপস্থিত
থাকবেন আওয়ামীলীগের যুন্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক,
সম্মেলন উদ্বোধন করবেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি মন্ডলির
সদস্য রমেশ চন্দ্র সেন এম.পি। সম্মেলনকে ঘিরে ইতোমধ্যে মঞ্চ তৈরী সহ
শেষ মুহুর্তের প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। শহর সেজেছে নব বধু রূপে।
২০০৬ সালে এপ্রিলে জেলা সম্মেলনের মাধ্যমে জেলা আওয়ামীলীগের
সভাপতি নির্বাচিত হন পৌরসভা মেয়র দেওয়ান কামাল আহম্মেদ,
সাধারণ সম্পাদক এ্যাডঃ মমতাজুল হক, ২০১২ সালে জানুয়ারীতে
পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন দেন দলের সভাপতি প্রধান মন্ত্রী শেখ
হাসিনা। সভাপতি পদে সাবেক সাংস্কৃতিক মন্ত্রী ও সংসদ সদস্য-২
জনাব আসাদুজ্জামান নুর এর নাম সোনা গেলেও আর কারো নাম
আসেনি এ তালিকায়। তবে সাধারণ সম্পাদক পদে এ্যাডঃ মমতাজুল
ছাড়াও নাম এসেছে যুবলীগের জেলা সভাপতি ও রাজপথের পরীক্ষিত
সৈনিক এ্যাডঃ রবেন্দ্র নাথ বর্দ্ধন বাপ্পি, বীর মুক্তিযোদ্ধা জেলা পরিষদের
চেয়ারম্যান জয়নাল আবেদীন, ছাত্রলীগ থেকে উঠে আসা ৯০ দশকের
রাজপথের লরাকু সৈনিক মিজানুর রহমান ও স্বেচ্ছা সেবক লীগের সভাপতি
কামরুজ্জামান কামরুল। মিজানুর রহমান বলেন, নবীনদের সমন্ময়ে দল গঠন
ও পরিচালনার উদ্দেগ নিয়েছে প্রধান মন্ত্রী। আমরা দীর্ঘ বছর যাবত ছাত্র
রাজনীতি করলেও দলের শীর্ষ পদে আমরা আসতে পারছি না, সমন্ময় হওয়া
জরুরী। তবে একাধিক কাউন্সিলর ও নেতা কর্মীরা জানিয়েছে দেওয়ান
কামাল আহম্মেদ, এ্যাডঃ মমতাজুল হক নীলফামারী রাজনীতিতে এরাই
সেরা জুটি আওয়ামীলীগের। তারা দু’জন দুই ধারার হলেও উন্নয়ন ও
এলাকার শান্তি শৃঙ্খলা রক্ষার্থে একই আদর্শে পথ চলেন। তাই এদের বিকল্প
আর দলে নেই। তবে নবীনদের ও তাদের সহযোগি করে নেয়া দরকার আগামী
দিনের নেতৃত্বের জন্য। দেওয়ান কামাল আহম্মেদ জানান, আওয়ামী লীগ
অনেক বড় একটি সংগঠন, প্রতিদ্বন্দি প্রার্থী থাকবেই কাউন্সিলররা
যাদের চাবে তারাই আগামীর নেতৃত্বে আসবে।