বুধ. এপ্রিল 24th, 2024

ভায়ারহাটে ঐতিহ্য শিব মন্দিরটি নবরুপে উদ্বোধন

স্টাফ রিপোর্টার :
রংপুরের কউনিয়া উপজেলার ভায়ারহাট বাজারে প্রায় কয়েকশ বছর আগের প্রায় ৩০০ফিট উচু তৈরী প্রাচীন ঐতিহ্য শ্রী শ্রী মদনমোহন বিগ্রহ শিব মন্দিরটি দীর্ঘদিন অযতœ, অবহেলা ও সংস্কারের অভাবে কালের সাক্ষী এ মন্দিরটি ধ্বংসের উপক্রম হয়েছিল। প্রাচীন আমলের লাল ইটের মন্দিরটির কিচ্ছু অংশ সংস্কার করে নবরুপে ফিরিয়ে আনেন এলাকার সনাতন হিন্দু ধর্মাবলীরা। দীর্ঘ দিন পর মন্দিরে উৎসবমুখর পরিবেশে শিব পুজা হওয়ায় ভক্ত দর্শনার্থীদের মাঝেও ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা লক্ষ্য করা গেছে।

মন্দিরটির ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনতে গত(৭ইমার্চ)বৃহস্পতিবার স্থানীয় সনাতন হিন্দু ধর্মাবলীদের উদ্যোগে নবরুপে উদ্বোধনের মধ্যদিয়ে সারাদিন ব্যাপী সংকীর্তন প্রসাদ বিতরণ করা হয়। এসময় দেখা যায় দর্শনার্থী ও পূজারিরা মন্দিরে ভিড় জমান। রংবেরঙের পোশাকে সজ্জিত সব বয়সী নারী-পুরুষ ও শিশু-কিশোরসহ পরিবার-পরিজন নিয়ে মন্দিরে সৌন্দর্য উপভোগ করতে পেরে খুশি ভক্ত-দর্শনার্থীরা।

জানাগেছে, প্রায় ৮শ বছর আগে স্বর্গীয় জমিদার শিব প্রসাদ মিত্র এলাকার হিন্দু সম্পদায়ের শিব ঠাকুরের পুজা করার জন্য নিজ উদ্যোগে ভায়ারহাট বাজারের পশ্চিম পাশ্বে পৌনে ৮ শতক জমির উপর প্রায় ৩০০ফিট উচু শিব মন্দির নির্মাণ করেন। শিবপ্রসাদ মিত্র মারা গেলে তার উত্তরসূরী রামপ্রসাদ মিত্র অস্বিকা প্রসাদ মিত্র, ভবানী প্রসাদ মিত্র, হর প্রসাদ মিত্রের মৃত্যুর পর দেশে একাত্তরের যুদ্ধ শুরু হলে তার দুই ছেলে অনন্দা প্রসাদ মিত্র ও সুখদা প্রসাদ মিত্র সপরিবারে দীর্ঘদিন ভারতে গিয়ে অবস্থান করেন। মন্দিরের ভিতরের সবগুলো মূর্তি ভাঙচুর করে স্বর্ণালংকার গুলো লুট করে নিয়ে যায় পাক হানাদার বাহিনীর লোকজন। সেই থেকে শিবমন্দির আর শিবঠাকুরের পূজা হয় না।



দর্শনার্থী শিবভক্ত দুলাল চন্দ্র বর্মন জানান, এলাকার সনাতন হিন্দু ধর্মাবলীদের উদ্যোগে দীর্ঘ কয়েক শতবছর পর মন্দিরটির কিচ্ছু অংশ সংস্কার করে নতুনভাবে মন্দিরের কার্যক্রম চলমান অনেক ভালো লেগেছে।
আয়োজক কমিটির সদস্য নসু চন্দ্র বর্মন বলেন, দীর্ঘ কয়েকশ বছর পর শিব মন্দিরটির কার্যক্রম ফিরিয়ে আনার জন্য সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।

উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক সুবোধ কুমার মিত্র জানান, এ অঞ্চলের প্রাচীন শিব মন্দিরটি দেখার জন্য দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে লোকজন। দিনের পর দিন রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে শিব মন্দিরটির এখন চতুর দিকে জঙ্গলের মাঝে যেন একটি পাহাড় দাঁড়িয়ে আছে। তারপরেও দূরদূরান্ত থেকে শিব ভক্ত প্রকৃতির প্রেমী মানুষ দেখতে আসতো এই শিব মন্দিরটি।

ভক্ত উদ্বোধন কমিটির সভাপতি ও অবসর প্রাপ্ত শিক্ষক সমীর কুমার রুনু জানান, পাকহানাদার বাহিনী মন্দিরের মূল্যবান মূর্তিগুলো সবগুলো লুটপাট করে অন্য মূর্তিগুলো ভেঙ্গে চুরমার করে ছিল। তখন থেকে আর মন্দিরে শিবের কোন পূজা হয় না। স্থানীয় সনাতন হিন্দু ধর্মাবলীদের উদ্যোগে প্রাচীন ঐতিহ্য শ্রী শ্রী মদনমোহন বিগ্রহ শিবমন্দিরটি সংস্কারপূর্বক নবরুপে উদ্বোধন হল। নবরুপে উদ্বোধনের মধ্যদিয়ে সারাদিন ব্যাপী সংকীর্তন প্রসাদ বিতরণ করা হয়। মন্দিরটি সংস্কারসহ পূর্বের কার্যক্রম চলমান রাখতে সবার সহযোগিতা কামনা করেন।