রবি. জানু. 29th, 2023

১৫ লাখের পর আরো যৌতুক না পেয়ে স্ত্রীকে হত্যা!

নিউজডেস্ক:

পারিবারিক কলহের জেরে দিপালী বেগম নামে এক গৃহবধূকে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে নির্মমভাবে হত্যা করেছে স্বামী রকিবুল গাজী। নড়াইল জেলার কালিয়া থানাধীন বাবরা হাচলা ইউনিয়নের উড়শীতে গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় এ ঘটনা ঘটে।

সিআইডি জানায়, ঘাতক স্বামী যৌতুকের ৫ লাখ টাকা নগদে নেয়ার পর আরো ১০ লাখ টাকার দাবি করে। সেটি নিয়ে ঝামেলা তৈরি হলে গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যা করে।
আজ (৮ সেপ্টেম্বর) বুধবার সিআইডি বিশেষ পুলিশ সুপার মুক্তা ধর আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব তথ্য জানান।

ঘটনার বর্ণনা দিয়ে বিশেষ পুলিশ সুপার মুক্তা ধর বলেন, ৬ বছর পূর্বে ভিকটিমের সাথে আসামীর বিয়ে হয়। বিয়ের সময় আসামী যৌতুক হিসেবে নগদ ৫ লাখ টাকা নেয়। আসামি কিছুদিন পর আবার ১০ লাখ টাকা দাবি করে। কিন্তু ভিকটিমের পরিবারের সদস্যরা তা দিতে অস্বীকার করে। এরপর থেকে ভিকটিমের উপর শুরু হয় অমানুষিক নির্যাতন।

তিনি বলেন, ভিকটিমের মা তা জানতে পেরে বসতবাড়ি বিক্রয় করে ১০ লাখ টাকা যৌতুক প্রদান করে। এই টাকা দিয়ে আসামী বাড়ি, ফার্নিচারের দোকান, কাঠের ডিজাইন করবার মেশিন ক্রয় করে। এরপর আসামী পুনরায় ৪ লাখ টাকা দাবি করে। এই টাকা আদায়ের জন্য ভিকটিমের উপর পুনরায় নির্যাতন শুরু হলে ভিকটিমের মা বিষয়টি নিষ্পত্তির জন্য মেয়ের বাড়িতে আসে।

তিনি আরো বলেন, পরবর্তিতে উক্ত বিষয় নিয়ে কলহের জের ধরে আসামি রকিবুল ভিকটিমের মা এর সামনে হাতুড়ি দিয়ে ভিকটিমের মাথায় আঘাত করলে মাথার খুলি ফেটে মগজ বের হয়ে যায়। আশেপাশের মানুষ চিকিৎসার জন্য পল্লী চিকিৎসককে ডেকে আনলে সে জানায় যে ভিকটিম মৃত্যুবরণ করেছে। 

পুলিশ সুপার মুক্তা ধর জানান, এই নৃশংস হত্যাকান্ডটি স্থানীয় ও জাতীয় পত্রিকায় ব্যাপক আলোচিত হয়। এরপর হত্যাকান্ডের পলাতক আসামীর সম্ভাব্য লুকিয়ে থাকার সকলস্থানে অভিযান পরিচালনা করে সিআইডি। যার ধারাবাহিকতায় সিআইডি’র একটি চৌকস টিম আত্মগোপনকৃত পলাতক আসামী রকিবুল গাজীকে সাভারের ধামসোনা হতে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়।